Menu
Menu

টোকিও অলিম্পিক ২০২০ PDF – সহজ বাংলা রচনা

ভালো লাগলে শেয়ার করো

টোকিও অলিম্পিক ২০২০ PDF – সহজ বাংলা রচনা

প্রাক কথন

খেলার জগতের ‘মহাকুম্ভ’ অলিম্পিক প্রতি চার বছরে একবার করে হয়। কিন্তু করোনা অতিমারির কারণে ২০২০ খ্রিস্টাব্দে তাতে যেন ব্রেক লেগে যায়। এক বছর বিলম্ব করে তা জাপানের রাজধানী টোকিওতে অনুষ্ঠিত হয় ২০২১ খ্রিস্টাব্দের ২৩ জুলাই। দীর্ঘ ১৭ দিন ধরে নানা ইভেন্টের মধ্য দিয়ে ৮ আগস্ট তার সমাপন ঘটে।

টোকিও অলিম্পিক

অলিম্পিকের ইতিহাসে টোকিওতে এটা নিয়ে দ্বিতীয়বার হল এই অনুষ্ঠান। এর আগে ১৯৬৪ খ্রিস্টাব্দেও টোকিওতে অলিম্পিক গেমসের আয়োজন করা হয়েছিল। এবারের টোকিও অলিম্পিকে ৩৩টি ইভেন্টে ৩৩৯টি মেডেলের লড়াই হয়েছে। আর এই গেমসে ২০৬টি দেশের ১১ হাজার প্রতিনিধি অংশগ্রহণ করেছিলেন। টোকিও অলিম্পিকে সার্ফিং, স্কেটিং, স্পোর্ট ক্লাইম্বিং এবং ক্যারটে এই চারটি খেলা প্রথমবার অন্তর্ভুক্ত হয়েছে। এর পাশাপাশি এবারের অলিম্পিকে ফিরে এসেছে পুরুষদের বেসবল এবং মহিলাদের সফটবল।

করোনা আবহে অলিম্পিক

করোনা ভাইরাসের জেরে আড়ম্বরহীন হয়ে গেল ১২৪ অতিক্রান্ত আধুনিক অলিম্পিক গেমস। মেডেল প্রদান অনুষ্ঠানের ক্ষেত্রেও করোনোর অতিমারির কারণে কিছু পরিবর্তন দেখা গিয়েছে। এবারের বিজয়ীদের গলায় আর মেডেল পরিয়ে দেওয়া হয়নি। পদকগুলি ট্রেতে করে বিজয়ীদের সামনে এলে, তারা নিজেরাই সেগুলির নিজেদের গলায় পরে নেন। এমনকি একে অপরের সঙ্গে হাতও মেলাতে দেখা যায়নি।

টোকিও অলিম্পিকে ভারতের সাফল্য

টোকিও অলিম্পিকের প্রথম দিনেই ৪৯ কেজি মহিলা বিভাগ ওয়েটলিফটিং-এ ভারতের হয়ে দীর্ঘ ২১ বছরে পর রূপো জিতে ইতিহাস গড়লেন মীরাবাই চানু। এর শেষ দিনেই হরিয়ানার কৃষক পরিবারে ছেলে নীরজ চোপড়া জ্যাভলিনে ভারতের একমাত্র সোনা বিজয়ী। এ ছাড়া হকি, ব্যাটমিন্টনসহ ভারতের ঝুলিতে মোট সাতটি পদক এসেছে এই টোকিও অলিম্পিকে। একটি সোনা, দুটি রুপো এবং চারটি ব্রোঞ্জ পদক পেয়ে ভারত ২৯৬টি দেশের মধ্যে ৪৮ নং স্থান দখল করেছে। এই টোকিও অলিম্পিকে গেমসে প্রথম স্থান অধিকার করেছে ১১৩টি পদকসহ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। দ্বিতীয় স্থানে আছে ৮৮টি পদক নিয়ে চিন। তৃতীয় স্থান দখন করেছে আয়োজক দেশ জাপান, তার পদক সংখ্যা ৫৮টি।

আরো পড়ুন-  কমনওয়েলথ গেমস ২০২২ প্রবন্ধ রচনা PDF

শেষ কথা

টোকিও ২০২০ অলিম্পিক গেমসে সমস্ত জাপানবাসী ব্যক্তিগতভাবে জড়িয়ে আছে। ২০১৭ খ্রিস্টাব্দের এপ্রিল মাস থেকে টোকিও অলিম্পিকের আয়োজক কমিটি জাপানের সমস্ত নাগরিকের কাছ থেকে প্রায় দুবছর অর্থাৎ মার্চ ২০১৯ খ্রিস্টাব্দের মধ্যে সমস্ত বাতিল, পুরোনো মোবাইল, ল্যাপটপ, ট্যাবলয় ও অন্যান্য ব্যক্তিগত ইলেকট্রনিক যন্ত্র সংগ্রহ করেন। এই সমস্ত যন্ত্র থেকে অপ্রয়োজনীয় প্লাস্টিকের অংশ বাদ দিয়ে শুধুমাত্র ধাতব অংশকে গলিয়ে পাওয়া যায় ৩২ কেজি সোনা, ৩৫০০ কেটি রুপো ও ২২০০ কেজি ব্রোঞ্জ থেকে তৈরি হয়েছে টোকিও অলিম্পিকের প্রায় ৫০০০ পদক। ইলেকট্রনিক্স বর্জ্যা নিয়ন্ত্রণে জাপানের এই অনন্য সাফল্যের ফলে অলিম্পিকে পরিবেশ বান্ধব ভাবমূর্তি যেমন উজ্জ্বল হলো তেমনি গোটা পৃথিবী পেল ই-বর্জ্য দূরীকরণের এক নতুন দিগন্ত। আর অতিমারির ভয়াল ভ্রূকুটিকে অতিক্রম করে সফল হলো টোকিও অলিম্পিক ২০২০।


ভালো লাগলে শেয়ার করো

Leave a Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!